করোনার প্রভাব মোকাবিলায় সম্মিলিত প্রয়াস

করোনার প্রভাব মোকাবিলায় সম্মিলিত প্রয়াস

ঢাকা: পুরো বিশ্ব কোভিড-১৯ মহামারির কারণে একটি নতুন বৈশ্বিক বাস্তবতার মুখোমুখি বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। কোভিড পরবর্তী নেতিবাচক প্রভাব বৈশ্বিক সম্মিলিত প্রয়াস প্রয়োজন বলেও তিনি মনে করেন ।

বুধবার(১৩ অক্টোবর) রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে ‘থার্ড ইউরেশিয়ান উইমেন্স ফোরাম’ অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী দিনে ‘উইমেন: এ গ্লোবাল মিশন ইন এ নিউ রিয়েলিটি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্যানেলিস্ট হিসেবে যোগদান করে এসব কথা বলেন স্পিকার। রাশিয়ান ফেডারেশনের স্পিকার ভেলেন্টিনা মাতভিয়েনকো এ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন।
সংসদ সচিবালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয় ৷

স্পিকার বলেন, প্রতিটি ক্ষেত্র বিশেষ করে নারী ও শিশুদের ক্ষেত্রে নানা চ্যালেঞ্জ সৃষ্টি করেছে এই মহামারি। লকডাউন পরিস্থিতি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকা, ব্যবসা-বাণিজ্যের স্থবিরতা, নারীদের অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন, নারীস্বাস্থ্য ও নারীর মানসিক স্বাস্থ্যকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করেছে। কোভিড-১৯ পরবর্তী নেতিবাচক প্রভাব ও নারী সহিংসতা মোকাবিলায় সামাজিক ও বৈশ্বিক সম্মিলিত প্রয়াস প্রয়োজন।

স্পিকার আরও বলেন, ঘরে বসে ভার্চু্যয়ালি কাজ করার পাশাপাশি সংসার ও সন্তানের পরিচর্যা করতে গিয়ে নারীদের বিভিন্ন সমস্যা হয়েছে। নারীর সক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে আরও সমতা ও সাম্যের ভিত্তিতে ভবিষ্যৎ বিনির্মাণে জরুরি পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন। নারীদের অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করতে সক্ষমতা বৃদ্ধির মাধ্যমে অর্থনৈতিক প্রক্রিয়ায় তাদের সম্পৃক্ত করতে হবে। তথ্য-প্রযুক্তিভিত্তিক ও কারিগরি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের দক্ষতা বৃদ্ধি সম্ভব। কর্মক্ষেত্রে তাদের সমান বেতন নিশ্চিতকরণে জরুরি পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন।

ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানবসম্পদ ও নারীদের উন্নয়নে বহুমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। নারীদের অর্থনৈতিক সক্ষমতা অর্জনে নেওয়া পদক্ষেপের যথাযথ বাস্তবায়নে সবার সহযোগিতা প্রয়োজন। ক্ষুদ্র ও মাঝারি নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ঋণ ব্যবস্থা, দরিদ্র নারীদের জন্য সামাজিক নিরাপত্তা বলয় কর্মসূচিসহ আরও কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে।
রাশিয়ান ফেডারেশনের স্পিকার ভেলেন্টিনা মাতভিয়েনকো ও ডেপুটি প্রাইম মিনিস্টার আব্রামসেনকো ভিক্টোরিয়া অনুষ্ঠানে কি-প্যানেলিস্ট হিসেবে বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে ভাইস রেক্টর মারিয়া আফোনিনা, মোজাম্বিক অ্যাসেম্বলির প্রেসিডেন্ট অ্যাসপেরানকা লরিন্ডা ফ্রান্সিসকো বায়াস, আজারবাইজানের স্পিকার সাহিবা গাফারোভা, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক তেদ্রোস আধানম গ্রেব্রিসাস, রাশিয়ান ফেডারেশনের শ্রম ও সামাজিক নিরাপত্তা মন্ত্রী অ্যান্টন কোতিয়াকভ ও গেবনিজ রিপাবলিকের সিনেট প্রেসিডেন্ট লুসি মাইলবো অবসন বক্তব্য রাখেন।
বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি, আবিদা আনজুম মিতা এমপি ও খোদেজা নাসরিন আক্তার হোসেন এমপি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *