মধ্যপ্রাচ্য থেকে আফগানিস্তানে ড্রোন হামলা, আইএসের পরিকল্পনাকারী নিহত

মধ্যপ্রাচ্য থেকে আফগানিস্তানে ড্রোন হামলা, আইএসের পরিকল্পনাকারী নিহত

যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী জানিয়েছে, তাদের চালানো ড্রোন হামলায় আফগানিস্তানে আইএসের একজন পরিকল্পনাকারী নিহত হয়েছেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার কাবুল বিমানবন্দরে ভয়াবহ হামলা হয়। আত্মঘাতী এই হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের ১৩ জন মেরিন সেনাসহ ১৭০ জনের বেশি নিহত হয়। আইএস খোরাসান শাখা এই হামলার দায় স্বীকার করে।

হামলার পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন প্রতিশোধের ঘোষণা দিয়ে বলেছিলেন, এই হামলার পেছনে যারা রয়েছে তাদের খুঁজে বের করা হবে। তাদের চরম মূল্য দিতে হবে। তবে যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় নিহত আইএস সদস্য বিমানবন্দরে হামলার পরিকল্পনাকারী কি না মার্কিন সেনাবাহিনী সেটা স্পষ্ট করেনি।

যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর বরাতে বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, সন্দেহভাজন আইএস সদস্যকে আফগানিস্তানের নানগরহার প্রদেশে টার্গেট করা হয়। মধ্যপ্রাচ্য থেকে একটি রেপার ড্রোন দিয়ে তাকে টার্গেট করা হয়। আইএসের ওই পরিকল্পনাকারী আরেকজন আইএস সদস্যের সঙ্গে গাড়িতে ছিলেন। হামলায় গাড়িতে থাকা উভয়ই নিহত হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল কমান্ডের ক্যাপ্টেন বিল আরবান বলেন, আফগানিস্তানের নানগরহার প্রদেশে মনুষ্যবিহীন বিমান হামলা চালানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, আমরা লক্ষ্যবস্তুকে হত্যা করতে পেরেছি। হামলায় কোনো বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়নি।

গত ১৫ আগস্ট আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান। এরপর হাজারো আফগান দেশ ছেড়ে যেতে বিমানবন্দরে হুমড়ি খেয়ে পড়ে। এতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়। এই বিশৃঙ্খলার সুযোগে বিমানবন্দরে ভয়াবহ হামলা চালায় আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামি স্টেট।

এখনও কাবুল বিমানবন্দরে অবস্থান করছে প্রায় পাঁচ হাজার মার্কিন সেনা। দেশ ছাড়তে মরিয়া আফগান নাগরিকদের সরিয়ে নিতে সহায়তা করছেন তারা। গত ২০ বছর এই আফগান নাগরিকরা তালেবানের বিরুদ্ধে যুদ্ধে পশ্চিমা বিশ্বকে সহায়তা করছে। কিন্তু তালেবান ফের আফগানিস্তানের ক্ষমতা গ্রহণ করায় ভয়ে এখন তারা দেশ ছাড়ছে।

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *