মহররম মাস ও আশুরার দিনে নবীজি (সা.) যেসব আমল করতেন

মহররম মাস ও আশুরার দিনে নবীজি (সা.) যেসব আমল করতেন

হিজরি বছরের প্রথম মাস হলো মহররম। হিজরি সন মুসলমানদের জন্য নানা কারণে গুরুত্বপূর্ণ। ইসলামের সব বিধান প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে এর সঙ্গে জড়িত।

আর এ মাস যেহেতু হিজরির সূচনা মাস। তাই এই মাসটি নতুন বছরে বিগত বছরের ত্রুটি কাটিয়ে নতুন প্রত্যয়ে নিজেদের জীবন পরিচালনার জন্য মাইলফলক। আরো বিভিন্ন দিক বিবেচনায় এ মাসটি আমাদের জন্য প্রাসঙ্গিক। এ মাসেরই দশম তারিখকে বলা হয় ‘আশুরা দিবস’।

কুরআন-সুন্নায় এ মাস ও দিবসের অনেক ফজিলত ও গুরুত্ব বর্ণিত হয়েছে। বিশেষত আশুরা দিবসটি এতে সবিশেষ গুরুত্ব রাখে। আশুরা দিবসের পাশাপাশি পুরো মহররম-ই মুমিনদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি মাস।
কারণ, হাদিসের ভাষায় এ মাসের নাম হলো ‘শাহরুল্লাহ’ তথা ‘আল্লাহর মাস’। আল্লাহ তায়ালা বছরের যে ক’টি মাসকে বিশেষ মর্যাদায় মহিমান্বিত করেছেন মহররম তার অন্যতম।

কোরআন হাদিসে মহিমান্বিত মহররম

আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআনে এ মাসের ব্যাপারে বলেছেন — ‘আল্লাহ যেদিন আসমান ও জমিন সৃষ্টি করেছেন, সেদিন থেকেই মাসসমূহের গণনা আল্লাহ তায়ালার নিকট তার বিধান মতে বারোটি। এর মধ্যে চারটি হলো সম্মানিত মাস। এটাই সুপ্রতিষ্ঠিত দ্বীন। কাজেই এ মাসগুলোতে তোমরা নিজেদের প্রতি জুলুম করো না।’
(সুরা আত তাওবা, আয়াত নং ৩৬)

এ আয়াতে আল্লাহতায়ালা চারটি মাসকে সম্মানিত মাস বলে অভিহিত করেছেন। আর সে চারটি মাস হলো, রজব, জিলকদ, জিলহজ ও মহররম।

যেমন সহিহ বুখারির বর্ণনায় এসেছে — হযরত আবু বাকরা (রা.) সূত্রে নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে বর্ণিত, তিনি বলেছেন— ‘আল্লাহ যেদিন আসমান ও জমিন সৃষ্টি করেছেন, সেদিন থেকে সময় যেভাবে আবর্তিত হচ্ছিল আজও তা সেভাবেই আবর্তিত হচ্ছে। বারো মাসে এক বছর। এর মধ্যে চারটি হলো সম্মানিত মাস। ধারাবাহিকভাবে রয়েছে তিনটি মাস, যথা — জিলকদ, জিলহজ ও মহররম। আর একটি মাস হলো রজব, যা জুমাদাল উখরা ও শাবান মাসের মাঝে অবস্থিত।’ (সহিহ বুখারি, হা. নং ৩১৭৯)

এসব আয়াত ও তার ব্যাখ্যা সংবলিত হাদিস থেকে প্রমাণ হলো যে, মহররম মাস আল্লাহর কাছে সম্মানিত একটি মাস। সম্মানিত মাসগুলোতে আল্লাহ তায়ালা তার বান্দাদেরকে গুনাহ করা থেকে বেঁচে থাকতে বিশেষভাবে আদেশ দিয়েছেন।

এ থেকে এটাও বোঝা যায় যে, এসব মাসে গুনাহ করা অন্যান্য মাসে গুনাহ করার চেয়ে অধিক গুরুতর অপরাধ। আর শরিয়তের মূলনীতি হলো, যেখানে গুনাহ করলে গুরুতর অপরাধ হয়, সেখানে ইবাদত করলে বেশি সওয়াব অর্জন হয়।

আল্লামা ইবনে কাসির রহিমাহুল্লাহ উক্ত আয়াতের ব্যাখ্যায় বলেন — ‘অতঃপর আল্লাহতায়ালা এ মাসগুলো থেকে চারটি মাসকে আলাদা করে হারাম করেছেন এবং তার মর্যাদা বৃদ্ধি করেছেন। এ মাসগুলোতে গুনাহকে অধিক জঘণ্য করেছেন এবং সৎকর্ম ও সওয়াবকে বৃদ্ধি করেছেন।

আল্লাহর বাণী ‘কাজেই এ মাসগুলোতে তোমরা নিজেদের প্রতি জুলুম করো না’ এর ব্যাখ্যায় কাতাদা রহিমাহুল্লাহ বলেন, নিশ্চয় হারাম মাসগুলোতে গুনাহ করা অন্যান্য মাসে গুনাহ করার চেয়ে অধিক গুরুতর অপরাধ। যদিও সর্বাবস্থায়ই গুনাহ নিষিদ্ধ, কিন্তু আল্লাহ তায়ালা নিজের ইচ্ছানুসারে তাঁর কোনো বিষয়কে বড় ও গুরুত্ববহ করে দেন।’ (তাফসিরে ইবনে কাসির, খণ্ড ৪, পৃষ্ঠা ১৩০)

দুই.

হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, নবি কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন- ‘রমজানের পর সবচেয়ে উত্তম সিয়াম হলো আল্লাহর মাস মহররমের সিয়াম। আর ফরজ নামাজের পর সবচেয়ে উত্তম নামাজ হলো রাতের নামাজ (অর্থাৎ তাহাজ্জুদের নামাজ)।’ (সহিহ মুসলিম, হা. নং ১১৬৩)

আরো ইরশাদ হয়েছে— (রমজানের পর) শ্রেষ্ঠ মাস হচ্ছে আল্লাহর মাস, যাকে তোমরা মহররম বলে থাক। (সুনানে কুবরা, সুনানে নাসাঈ, হা. নং ৪২১৬)

এক সাহাবি নবীজির কাছে এসে জিজ্ঞাসা করলেন— হে আল্লাহর রাসুল! রমজানের পর আপনি কোন মাসে সিয়াম পালন করতে বলেন?

নবীজি বললেন— ‘তুমি যদি রমজানের পর সিয়াম পালন করতে চাও, তাহলে মহররমে সিয়াম পালন করো। কেননা, মহররম হচ্ছে আল্লাহর মাস। এ মাসে এমন একদিন আছে, যেদিন আল্লাহতায়ালা (অতীতে) অনেকের তওবা কবুল করেছেন। ভবিষ্যতেও অনেকের তওবা কবুল করবেন। (জামে তিরমিযি, হা. নং ৭৪১)

মুহাদ্দিসিনে কেরাম এ দিনটি আশুরার দিন হওয়ার সম্ভাবনা উল্লেখ করেছেন। (লাতাইফুল মাআরেফ, পৃষ্ঠা ৭৬)

আশুরা দিবসের গুরুত্ব ও পালনীয় আমল

মহররম মাসের সবচেয়ে মহিমান্বিত দিন হচ্ছে ‘আশুরা দিবস’ তথা মহররমের দশ তারিখ। আশুরা দিবস গুরুত্বপূর্ণ হওয়া এবং এদিনে সিয়াম পালনের কারণ হলো, আল্লাহ তায়ালা মুসা আলাইহিস সালাম ও তার সম্প্রদায়কে এই দিন জালেম ফেরাউনের কবল থেকে মুক্তিদান করেছিলেন।

যেমন সহিহ বুখারিতে এসেছে — ‘ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন,আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মদিনায় আগমন করে দেখতে পেলেন যে, ইহুদিরা আশুরা দিবসে সিয়াম পালন করে।

তিনি জিজ্ঞেস করলেন, কী ব্যাপার? (তোমরা এদিনে সিয়াম পালন করছো কেন?) তারা বললো, এটা অতি উত্তম দিন। এই দিনে আল্লাহতায়ালা বনি ইসরাইলকে তাদের শত্রুর কবল থেকে মুক্তি দান করেছেন। ফলে এই দিনে মুসা আলাইহিস সালাম সিয়াম পালন করেছেন। আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, মুসা আলাইহিস সালামের অনুসরণের ক্ষেত্রে আমি তোমাদের অপেক্ষা অধিক হকদার। এরপর তিনি এ দিনে সিয়াম পালন করলেন এবং (অন্যদেরকেও) সিয়াম পালনের নির্দেশ দিলেন।’ (সহিহ বুখারি, হা. নং ২০০৪; সহিহ মুসলিম, হা. নং ১১৩০)

দুই.

ইসলামপূর্ব আরব জাহেলি সমাজেও এই দিনের বিশেষ গুরুত্ব ও মর্যাদা ছিল। যেমন সুনানে আবু দাউদের হাদিসে এসেছে — ‘আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, মূর্খতার যুগে কুরাইশরা আশুরা দিবসে সিয়াম পালন করতো। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজেও তখন (নফল হিসেবে) এ সিয়াম পালন করতেন।

এরপর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন মদিনায় আসলেন, তখন তিনি (ফরজ হিসেবে) আশুরার সিয়াম রাখলেন এবং (সাহাবিদেরকেও) এই সিয়াম পালনের আদেশ দিলেন। এরপর যখন রমজানের সিয়াম ফরজ করা হলো, তখন তা আবশ্যক হয়ে গেল। ফল

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *