বিপক্ষে ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের সর্বনিম্ন প্রথম ইনিংস

 

বিপক্ষে ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের সর্বনিম্ন প্রথম ইনিংস

টেন্ট ব্রিজে সিরিজের প্রথম ম্যাচে উইকেট যেন বিশ্বাসঘাতকা করল স্বাগতিকদের সঙ্গে। কন্ডিশন আর উইকেটের ধরন দুটোই হয়ে উঠল ব্যাটিং-বিরুদ্ধ।

উপযুক্ত কন্ডিশনের পূর্ণ সদ্ব্যবহার করে ইংলিশদের ২০০’রও কম রানে গুটিয়ে দিল ভারতীয় পেসাররা। যা ঘরের মাঠে ভারতের বিপক্ষে ইংল্যান্ডের সর্বনিম্ন প্রথম ইনিংস

ম্যাচের প্রথম ওভারে পঞ্চম বলেই বাঁহাতি ইংলিশ ওপেনার রোরি বার্নসকে শূন্য রানে এলবিডব্লিউর শিকার বানিয়ে সাজঘরে ফেরত পাঠান জশপ্রীত বুমরাহ।

এরপর ডম সিবলি আর জ্যাক ক্রলি ২০ ওভার পর্যন্ত টেনে নিয়ে যান দলকে। এই দুই টপঅর্ডারের ৪২ রানের ধীর গতির জুটি ভাঙেন পেসার মোহাম্মদ সিরাজ আঘাতে। উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ক্রলি। এর পর জো রুট নেমে লাঞ্চ বিরতি পর্যন্ত কোনো ক্ষতি হতে দেন।

তবে বিরতির পর মাঠে নেমেই ডম সিবলিকে ফিরিয়ে নিজের প্রথম উইকেট শিকার উদযাপন করেন মোহাম্মদ শামি।

তবে সতীর্থের বিদায়ে বিচলিত না হয়ে অর্ধশতক তুলে নেন অধিনায়ক জো রুট। জনি বেয়ারস্টো দারুণ সঙ্গ দেন রুটকে।

চা বিরতির ঠিক আগে শামির বলে এলবিডব্লিউ হয়ে ফেরেন বেয়ারস্টো। ৭২ রানের জুটি ভাঙে রুট-বেয়ারস্টোর। এটাই ইনিংসের সর্বোচ্চ জুটি। ১৩৮ রান তুলতেই তখন ইংলিশদের অর্ধেক ইনিংস হাওয়া।

এরপর বাকি সবাই ছিলেন আসা-যাওয়ার মধ্যে। মাত্র তিন ওভারে ব্যবধানে আউট হন মিডলঅর্ডারের তিন তারকা। বাটলারকে ফেরেন বুমরাহ। পরের ওভারের অধিনায়খ রুট আর রবিনসনকে ফেরান শার্দুল ঠাকুর। রুটের সংগ্রামী ৬৪ রানের ইনিংসই সর্বোচ্চ।

রুটের বিদায়ের পর কেবল স্যাম কারানের ইনিংসটি নজর কেড়েছে। সঙ্গীর অভাবে অপরাজিত ২৭ রানের ইনিংসকে বড় করতে পারেননি ক্যারান। মাত্র ১৮৩ রানেই গুটিয়ে গেছে স্বাগতিকদের ইনিংস। নিজেদের মাটিতে ভারতের বিপক্ষে ইংল্যান্ডের সর্বনিম্ন প্রথম ইনিংস সংগ্রহ এখন এটিই। এর আগে ২০০৭ সালে ভারতের মুখোমুখি হয়ে ১৯৬ রানে গুটিয়ে গিয়েছিল দলটি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ইংল্যান্ড: ৬৫.৪ ওভারে ১৮৩ (ক্রলি ২৭, রুট ৬৪, বেয়ারস্টো ২৯, কারান ২৭*; বুমরাহ ৪৬-৪, শামি ২৮-৩, সিরাজ ৪৮-১, শার্দুল ১৩-৩-৪১-২)।

ভারত: ১৩ ওভারে ২১/০ (রোহিত ৯*, রাহুল ৯*)।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *