ঢাকাFriday , 29 April 2022
  1. অন্যান্য
  2. আন্তর্জাতিক
  3. আবহাওয়া
  4. ইসলাম
  5. খেলাধুলা
  6. জাতীয়
  7. দেশজুরে
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. শিক্ষা
  11. স্বাস্থ্য

চৌমুহনী অগ্নিকাণ্ডে দুই শতাধিক দোকান ভস্মীভূত, শত কোটি টাকার ক্ষতির আশঙ্কা

admin
April 29, 2022 6:57 am
Link Copied!

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের চৌমুহনী বাজারে অগ্নিকাণ্ডে ঈদ বাজারে কমপক্ষে ২০০ দোকান পুড়ে গেছে ভস্মীভূত হয়েছে। এতে অন্তত ১০০ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলছে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা।

এদিকে আগুনের খবর শুনে রিংকু (৪০) নামের এক ব্যবসায়ী হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেছেন।

এছাড়াও আগুন নেভাতে গিয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীসহ অন্তত ১০ জন গুরুতর আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৮ এপ্রিল) সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে চৌমুহনী

বাজারের ব্যাংক রোডের স্টেশন মার্কেট, ইসলাম মার্কেটে অগ্নিকাণ্ডের এ ঘটনা ঘটে।

ব্যবসায়ীদের দাবি, ঈদ উপলক্ষে সাজানো দোকান পুড়ে তাদের অনেকে নিঃস্ব হয়ে পথের ফকির হয়ে গেছেন। এদিকে,

অসুস্থ স্ত্রীকে নিয়ে হাসপাতালে থাকা ব্যবসায়ী রিংকু আগুনের খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে এসে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান।

এ বিষয়ে নোয়াখালী পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলাম বিডি২৪লাইভকে জানান, ফায়ার সার্ভিসের আটটি ইউনিট

সাড়ে ৫ ঘণ্টা চেষ্টার পর রাত সাড়ে ১২ টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। আগুনে ব্যবসায়ীদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

বাজারের নিরাপত্তায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃহস্পতিবার ইফতারের পর হঠাৎ রেলগেইটের স্টেশন এলাকার একটি দোকানে আগুনের সূত্রপাত ঘটে।

পরে মুহূর্তের মধ্যেই আগুনের লেলিহান শিখা স্টেশন রোডসহ চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে।

এতে স্টেশন মার্কেট, হোসেন মার্কেট ও ইসলাম মার্কেটের জুতার দোকান, ফার্মেসী, কাপড়, হার্ডওয়্যার, বই, প্লাস্টিক ও গ্যাস সিলিন্ডারের

দোকানসহ হকারদের ২০০ দোকান পুড়ে ছাই হয়ে যায়।খবর পেয়ে চৌমুহনী, মাইজদী, চাটখিল, কবিরহাট, সেনবাগ,

কোম্পানীগঞ্জ, লক্ষ্মীপুর ও ফেনীর ফায়ার সার্ভিসের আটটি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে ঘটনাস্থলে ছুটে যায়।

রাত ১২টায় ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা বিডি২৪লাইভকে জানান, আগুন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে এসেছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা

হচ্ছে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানানো হবে।

অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক স্থানীয় নোয়াখালী-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মামুনুর রশিদ কিরণ, জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমান,

পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলাম, চৌমুহনী পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা খালেদ সাইফুল্লাহ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা

শামসুন নাহার ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর জাহেদুল হক রনিসহ অন্যান্য

কর্মকর্তারা তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে ছুটে যান,আগুন নিভানো শেষ পর্যন্ত আপ্রাণ চেষ্টা করে যান।

জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের কর্মকর্তাদের আপ্রাণ চেষ্টা ও টানা ৫ ঘন্টা ঘটনাস্থলে অবস্থান ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে

ব্যাপক প্রশংসা পায় ও ভাইরাল হয়।আগুন নেভাতে স্থানীয়দের পাশাপাশি

জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা ও রাজনৈতিক নেতাকর্মীরা ঝাঁপিয়ে পড়াকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছে সাধারণ জনগণ।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।