বোনের দুই সন্তানের মরদেহ নিয়ে এক বছর ধরে ঘুরছিলেন নারী!


বোনের দুই সন্তানের মরদেহ নিয়ে এক বছর ধরে ঘুরছিলেন নারী
আমেরিকার বাল্টিমোরে বোনের ছেলেমেয়েক হত্যা করে প্রাইভেটকারে তাদের মরদেহ নিয়ে মাসের পর মাস ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন এক নারী।

নিকোল জনসন নামে ওই নারীকে শুক্রবার গ্রেফতার করেছে পুলিশ।খবর ইয়াহু নিউজ ও দ্য বাল্টিমোর সানের।

পুলিশ জানিয়েছে, বোনের ছেলেমেয়েকে খুনের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে নিকোলের ট্রাফিক আইন ভাঙার বিষয়টি কেন্দ্র করে।

ট্রাফিক আইন ভেঙে জোরে গাড়ি চালানোর জন্য গত বুধবার পুলিশ তাকে আটক করে।

নিকোলের কাছে গাড়ির কাগজপত্র দেখতে চাওয়া হয়। কিন্তু তিনি সঠিক কাগজ দেখাতে পারেননি ট্র্যাফিক পুলিশকে।

দায়িত্বে থাকা পুলিশ কর্মকর্তা নিকোলকে জানান, গাড়ি তুলে নিয়ে যাওয়া হবে। এ কথা শোনার পর কোনও আপত্তি জানাননি নিকোল। বরং তিনি জানান, গাড়িটা তারা নিয়ে যেতে পারেন। কেননা তিনি পাঁচ দিন বাড়িতে থাকবেন না।

এর পরই নিকোল বলেন, সংবাদের শিরোনামে খুব শিগগিরই আসতে চলেছি।

পুলিশ জানিয়েছে, নিকোলের গাড়ির ডালা খুলতেই দুর্গন্ধ ভেসে আসে। সেখানে একটি বাক্স দেখা যায়। সেই বাক্সের মধ্যে গলিত একটি শিশুর হাড়। তার পাশেই আরও একটি শিশুর পচাগলা দেহ। এর পরই শুক্রবার গ্রেফতার করা হয় নিকোলকে।

জেরা করে পুলিশ জানতে পেরেছে, নিকোলকে ভরসা করে ২০১৯ সালে ছেলেমেয়েকে তার কাছে রেখে গিয়েছিল বোন।

২০২০ সালের মে মাসে ছেলেটিকে খুন করেন তিনি। তার পর তার মরদেহ স্যুটকেসে ভরে গাড়ির পিছনের ডালায় ঢুকিয়ে দেন।

ছেলেটিকে খুন করার কয়েক দিন পর মেয়েটিকেও খুন করেন তিনি। তার পর এক বছর ধরে ওই গাড়িতেই দু’টি শিশুর দেহ নিয়ে ঘোরাফেরা করেছেন নিকোল। অবশেষে ট্রাফিক আইন ভাঙার জন্য আসল সত্যটা সামনে এসেছে।

কী কারণে বোনের ছেলেমেয়েকে খুন করেছেন নিকোল তা খতিয়ে দেখেছেন তদন্তকারীরা।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *