ঢাকাMonday , 28 March 2022
  1. অন্যান্য
  2. আন্তর্জাতিক
  3. আবহাওয়া
  4. ইসলাম
  5. খেলাধুলা
  6. জাতীয়
  7. দেশজুরে
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. শিক্ষা
  11. স্বাস্থ্য
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সড়কে চাঁদাবাজি বন্ধের দাবি শাজাহান খানের

admin
March 28, 2022 1:38 pm
Link Copied!

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি শাজাহান খান এমপি বলেছেন, ‘ঈদযাত্রা নিরাপদ করতে হলে সড়কে আনফিট (ত্রুটিপূর্ণ) গাড়ি চলাচল ও চাঁদাবাজি বন্ধ করতে হবে। একইসঙ্গে বিআরটিএ ও বিআরটিসিসহ সড়ক সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধি ও আইনের কঠোর প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে।’

 

আজ সোমবার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) নসরুল হামিদ মিলনায়তনে ‘আসন্ন ঈদ ও বিদ্যমান সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বেসরকারি সংগঠন নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটি এবং যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ যৌথভাবে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাতীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আশীষ কুমার দে।

 

কমিটির সভাপতি হাজী মোহাম্মদ শহীদ মিয়ার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় দুঃসহ স্মৃতিচারণ করেন একযুগ আগে সড়ক দুর্ঘটনার পা-হারানো সিনিয়র সাংবাদিক নিখিল ভদ্র এবং সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার মাঠপর্যায়ের অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার চিত্র তুলে ধরেন যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সামসুদ্দীন চৌধুরী।

 

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে আলোচনা করেন উন্নয়ন ধারা ট্রাস্টের সদস্যসচিব আমিনুর রসুল বাবুল, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ ও পরিবহনবিষয়ক রিপোর্টার রাজন ভট্টাচার্য।

 

দুর্ঘটনা বৃদ্ধি ও এর মূল কারণ উদঘাটনে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার ওপর জোর দেওয়ার জন্য গণমাধ্যমকর্মীদের আহ্বান জানিয়ে শাজাহান খান বলেন, ‘সব দুর্ঘটনার দায় চালকের ওপর চাপিয়ে দিয়ে একতরফা বিচার করলে হবে না। দুর্ঘটনার পেছনে অনেকগুলো কারণ থাকে। বিআরটিএ ও পুলিশের সক্ষমতার ঘাটতি, ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন,

 

চালকের স্বল্পতা, লাইসেন্সবিহীন ও অদক্ষ চালক, এক শ্রেণির মালিকের অতিরিক্ত মুনাফার লোভ, সাধারণ মানুষের সচেতনতার অভাব এবং অপরিকল্পিত, ঝুঁকিপূর্ণ ও বেহাল সড়কের কারণে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে। বিআরটিসির সক্ষমতার অভাবে সড়ক পরিবহন ব্যবস্থার ৯০ শতাংশই বেসরকারি খাতে চলে গেছে। এটাও যাত্রী ভোগান্তির আরেকটি কারণ।’

 

এই শ্রমিক নেতা বলেন, ‘পরিবহনে আগে চাঁদাবাজি চললেও এখন তা ৮০ শতাংশ কমানো হয়েছে। মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের নামে এখন আর চাঁদাবাজি হয় না। তবে বিভিন্ন শহরে চলন্ত গাড়ি থেকে পার্কিং ফিসের নামে সিটি করপোরেশন ও পৌরসভাগুলো গাড়িপ্রতি ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা চাঁদা আদায় করছে। এটা অবশ্যই বন্ধ করতে হবে।’

 

তিনি বলেন, ‘দক্ষ চালক তৈরির জন্য প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট স্থাপন করা আবশ্যক। গাড়ির বিপরীতে লাইসেন্সধারী চালকের সংখ্যাও দ্বিগুণ করতে হবে। ঈদযাত্রায় যাতে কোনো ত্রুটিপূর্ণ গাড়ি চালানো না হয় এবং ত্রুটিপূর্ণ গাড়িগুলো যেন আগেই ত্রুটিমুক্ত করে চলাচলের উপযোগী করা হয়।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।