যুক্তরাষ্ট্রকে পাল্টা জবাব দিল চীন


যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক কর্মকর্তা ও কয়েকটি সংস্থার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে চীন। হংকং ইস্যুতে চীনা কর্মকর্তাদের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞার জবাবে বেইজিং এ নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বলে শনিবার বিবিসি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে।

ADVERTISEMENT

সাবেক মার্কিন বাণিজ্যমন্ত্রী উইলবার রসও চীনের নিষেধাজ্ঞার আওতায় রয়েছেন বলে জানা গেছে।

কয়েকদিনের মধ্যেই মার্কিন উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়েন্ডি শেরম্যানের চীন সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে। এরই মধ্যে এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করল বেইজিং।

সম্প্রতি হংকংয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর দমনপীড়নে ভূমিকা রাখছে বলে অভিযোগ তুলে সেখানকার কয়েকজন কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র।

হংকংয়ে ব্যবসা পরিচালনার ক্ষেত্রে ক্রমবর্ধমান ঝুঁকির ব্যাপারে মার্কিন ব্যবসায়ীদের সতর্কও করে দেয় ওয়াশিংটন।

গণতন্ত্রপন্থিদের ব্যাপক বিক্ষোভের পর হংকংয়ে গত বছর থেকে জাতীয় নিরাপত্তা আইন চালু হয়। এই আইনে বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন, বিদ্রোহ এবং বিদেশি শক্তির সঙ্গে যোগসাজশের অপরাধে দোষী সাব্যস্তদের সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের সাজা হতে পারে।

হংকংয়ের ব্যবসায়িক পরিবেশ নষ্ট করার উদ্দেশ্যেই যুক্তরাষ্ট্রের সাম্প্রতিক নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে বলে শুক্রবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আরও জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের এই পদক্ষেপে আন্তর্জাতিক আইন এবং যেসব মৌলিক নিয়মাবলীর মাধ্যমে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক পরিচালিত হয় তা মারাত্মকভাবে লঙ্ঘিত হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বাণিজ্যমন্ত্রী থাকাকালে রস চীনা টেলিকম জায়ান্ট হুয়াওয়ে, জেডটিইসহ একাধিক কোম্পানির বিরুদ্ধে বিধিনিষেধ আরোপ করেছিলেন।

উইলবার রস ছাড়া চীনের নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকা ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানগুলো হলো, চীনে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের পরিচালক সোফি রিচার্ডসন, ইউএস-চায়না ইকোনমিকের প্রধান ক্যারোলিন বার্থোলোমিউ, সিকিউরিটি রিভিউ কমিশন এবং অ্যাডাম কিং অব ইন্টারন্যাশনাল রিপাবলিকান ইন্সটিটিউট ।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *